সোমবার, ১১ই জুন, ২০১৮

আটক নির্ভয়ার বাবা-মা, অজ্ঞাত স্থানে ধর্ষক

নিউজ টাইম কলকাতা ডট কম
ডিসেম্বর ১৯, ২০১৫
news-image

নয়াদিল্লি: আদালত সবুজ সঙ্কেত দিয়েছে শনিবারই। রবিবার সংশোধনাগার থেকে তিন বছরের কারাবাস কাটিয়ে ছাড়া পেতে চলেছে ১৬ ডিসেম্বরের গণধর্ষণে সবচেয়ে নৃশংস আচরণ করা, অপরাধের সময় বয়সের বিচারে নাবালক  অপরাধী। কিন্তু তার একদিন আগেই তাকে সংশোধনাগার থেকে বের করে কোনও এক অজ্ঞাত স্থানে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাকে দিল্লির বাইরে কোথাও নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে সংবাদ সংস্থা পিটিআই। তবে বর্তমানে বয়স ২০ হওয়া ছেলেটির প্রাণ সংশয় হতে পারে, এহেন আশঙ্কার জন্যই তাকে অন্যত্র সরিয়ে দেওয়া হল বলে জানিয়েছে একটি সূত্র। বিষয়টির ওপর একাধিক এজেন্সিও নজর রাখছে বলে সূত্রটির দাবি।

এদিন নিজেদের মেয়ের ধর্ষণে জড়িত নাবালক অপরাধী মুক্তি পেতে চলেছে বলে প্রতিবাদ জানিয়ে নির্ভয়ার বাবা-মা রাজধানীতে বিক্ষোভ দেখান। তাদের সঙ্গে শামিল হন দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় ও জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪০ জন পড়ুয়া। পরে নির্ভয়ার বাবা জানান, তাঁরা মজনু কা টিলা এলাকার সংশোধনাগারের বাইরে ওই নাবালক অপরাধীর মুক্তির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছিলেন। পুলিশ তাদের আটক করে। তাঁর প্রশ্ন, দেশ কি ন্যয়বিচার নেই? নরেন্দ্র মোদী গোটা দুনিয়া ঘুরছেন। কিন্তু দেশের মহিলাদের কোনও নিরাপত্তা নেই। সকলেই বদলের কথা বলে, কিন্তু কিছুই হয়নি।

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরীবাল নির্ভয়ার বাবা, মায়ের আটক হওয়ার খবরে ক্ষোভ জানিয়ে টুইট করেছেন। তিনি লিখেছেন, নির্ভয়ার অভিভাবকদের আটক করা হল। আমি হতবাক। অবিলম্বে ওদের ছে়ড়ে দিতে হবে। ওদের ছাড়িয়ে আনার জন্য আমি পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে কথা বলতে মুখ্য সচিবকে নির্দেশ দিয়েছি।

২০১২-র ১৬ ডিসেম্বরের রাতে চলন্ত বাসে এক প্যারামেডিকেল ছাত্রীকে ধর্ষণ করে ওই নাবালক ও আরও পাঁচজন। গোটা দেশ বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। কিশোর বলে বাকিদের মতো বিচার হয়নি তার। জুভেনাইস জাস্টিস বোর্ডে ছেলেটির বিচার হয়। তাকে তিন বছর সংশোধনাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয় বোর্ড। তাকে রাখা হয় উত্তর দিল্লির ম্যাগাজিন রোডের ‘প্লেস টু সেফটি’ রিফর্ম হোমে। যদিও এতে তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করে নানা মহল থেকে দাবি করা হয়, সে যে ভয়াবহ, নারকীয় অপরাধ করেছে, তার তুলনায় যথেষ্ট নয় এই সাজা। প্রাপ্তবয়স্কদের আদালতে তার বিচার করতে হবে বলে দাবি ওঠে।