সোমবার, ১১ই জুন, ২০১৮

সীতাকে বনবাসে পাঠানোয় রামের বিরুদ্ধে মামলা

নিউজ টাইম কলকাতা ডট কম
ফেব্রুয়ারি ১, ২০১৬
news-image

মহাকবি বাল্মিকীর অমর সৃষ্টি রামায়ন। এই গ্রন্থজুড়ে রয়েছে রামের গুণকীর্তন। রামকে বলা হয়েছে অবতার। তবে সেই রামের বিরুদ্ধে মামলা করলেন তিনি।

২০১২ সালের ‘ও মাই গড’ ফিল্মের মতোই কি এবার বাস্তবেও ঘটতে চলেছে? কারণ রামের বিরুদ্ধে মহিলাদের প্রতি দুর্ব্যবহারের অভিযোগ এনে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন এক আইনজীবী।

বিহারের আইনজীবী ঠাকুর চন্দন কুমার সিং চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে রামের বিরুদ্ধে পিটিশন দাখিল করেছেন। তাঁর অভিযোগ, অগ্নিপরীক্ষায় সফলভাবে উত্তীর্ণ হওয়ার পরও অর্ধাঙ্গিনী সীতাকে আজীবন বনবাসে পাঠিয়ে মহিলাদের প্রতি চরম নিষ্ঠুরতার পরিচয় দিয়েছেন রাম।

রামায়নের পৌরাণিক কাহিনী অনুযায়ী, রাবন সীতাকে অপহরণ করলে প্রতিশোধ নিতেই লঙ্কা আক্রমণ করেন রাম। তবে লঙ্কার যুদ্ধে জিতলেও অপহৃত সীতাকে ত্যাগ করেছিলেন তিনি। পৌরাণিক কাহিনী অনুযায়ী, সীতা সতীত্বের পরীক্ষা দিয়ে তাতে সফলভাবে উত্তীর্ণ হন সীতা। তারপর প্রজাদের মন রক্ষা করতে এবং সামাজিক মর্যাদা ক্ষুণ্ণ হওয়ার ভয়েই সীতাকেই ত্যাগ করেন রাম। তাকে বনবাসে পাঠান।

কারও ব্যক্তিগত আবেগে আঘাত করতে চান না বলে জানিয়ে ওই আইনজীবী বলেছেন, ‘দেবীকে বিনা অপরাধে বনবাসে পাঠানো হয়। এটা রাজা রামের একটা অন্যায় নির্দেশ। একজন মানুষ তাঁর স্ত্রীর প্রতি কীভাবে এতটা নিষ্ঠুর হন, যে তাঁকে জঙ্গলে বাস করার নির্দেশ দিতে পারেন। ভগবান রাম এক মুহূর্তের জন্যও ভাবেননি একজন মহিলা কীভাবে বন্য জন্তু, সরীসৃপের মাঝে একা একা জীবন কাটাবে।’ এই মামলার শুনানি হওয়ার কথা সোমবারই।

ওই আইনজীবীর মতে, এটা একটা অন্যায়। এমন করে একজন নারীকে বনবাসে পাঠানো অমানবিক। রাম অন্যায় করায় তার বিরুদ্ধে মামলা করেছেন তিনি। ওই আইনজীবীর অভিযোগ, রামচন্দ্র সীতাকে অপমান করেছেন। সেই কারণেই সীতামারি জেলার আদালতে মামলা দায়ের করেছেন তিনি। কেবল রাম নয়, তার ভাই লক্ষণের বিরুদ্ধেও মামলা করেছেন ওই আইনজীবী। লক্ষ্মণের বিরুদ্ধে তার অভিযোগ, এই কাজে দাদাকে সাহায্যে করেছিলেন তিনি।