মঙ্গলবার, ১২ই জুন, ২০১৮

স্কুলে পড়ুয়াদের হাতে ফোন: সিদ্ধান্ত ঘিরে বিতর্ক

নিউজ টাইম কলকাতা ডট কম
জুন ২৩, ২০১৬
news-image

কলকাতা: চাইলে স্কুলে মোবাইল ফোন আনতে পারবে পড়ুয়ারা। অশোক হল গ্রুপ অফ স্কুলসের এই বিজ্ঞপ্তি ঘিরে তৈরি হয়েছে বিতর্ক। অভিভাবকদের কারও কারও আশঙ্কা, এর ফলে তাঁদের সন্তানদের মনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি হবে না তো? বিজ্ঞপ্তিতে কর্তৃপক্ষের যুক্তি, মোবাইলের ক্রমবর্ধমান প্রয়োজনীয়তার কথা মাথায় রেখে এই সিদ্ধান্ত।

জি ডি বিড়লা সেন্টার ফর এডুকেশনের পড়ুয়াদের হাতে পৌঁছেছে এই নির্দেশিকা। যেখানে বলা হয়েছে, চাইলে স্কুলে মোবাইল ফোন আনতে পারবে পড়ুয়ারা। ক্লাস চলাকালীন মোবাইল ফোন সুইচড অফ থাকবে এটাই কাম্য। মোবাইল ফোন হারিয়ে গেলে কিম্বা চুরি হয়ে গেলে, তার জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না।

স্কুল কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তে হইচই পড়ে গিয়েছে অভিভাবক মহলে। কেউ কেউ আশঙ্কা করছেন, এর ফলে তাঁদের সন্তানদের মনঃসংযোগ নষ্ট হবে।

কেউ কেউ আবার বলছেন, সন্তানের জন্য কোনও অভিভাবককের মোবাইল কেনার সামর্থ্য নাই থাকতে পারে! আবার কোনও অভিভাবক তার সন্তানকে মোবাইল ফোন নাই দিতে চাইতে পারে। কিন্তু, সহপাঠীর হাতে দামী স্মার্টফোন দেখে, বাকিদের মনে নেতিবাচক ধারনা তৈরি হবে না তো?

অভিভাবকদের অনেকেই বক্তব্য, তাঁদের সন্তানরা তো এখনও নিজের পেনসিল বক্সই ঠিকমতো করে রাখতে জানে না! সেক্ষেত্রে মোবাইল ফোন তার হাতে দিলে অন্য ঘটনাও তো ঘটতে পারে! পড়ুয়াদের একটা বড় অংশ অবশ্য এদিন স্কুলে মোবাইল আনেনি। কেন আনেনি, তার ব্যাখ্যাও মজুত খুদে পড়ুয়াদের কাছে।

ফোনে যোগাযোগ করেও এ নিয়ে প্রতিক্রিয়া মেলেনি স্কুল কর্তৃপক্ষের। তবে বিজ্ঞপ্তিতে তারা উল্লেখ করেছে, মোবাইল ফোনের ক্রমবর্ধমান প্রয়োজনীয়তার কথা মাথায় রেখেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এ কথা অস্বীকার করার উপায় নেই যে, বর্তমান জীবনে মোবাইল জরুরি। কিন্তু খুদে পড়ুয়াদের তা স্কুলে আনার ছাড়পত্র কতটা জরুরি, তা নিয়ে বিতর্ক রয়েইছে। সেই বিতর্কই উসকে দিল এই বিজ্ঞপ্তি।